Tips & Tricks

-: কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস্ :-

১। কম্পিউটারকে ক্র্যাশ থেকে সুরক্ষা করা : যা করতে হবে- Start menu থেকে  run এ গিয়ে regedit লিখে enter. এবার HKEY_LOCAL_MACHINE এ ক্লিক। তারপর SYSTEM এ ক্লিক করে Current Control Set > Crash Control. এবার ডানদিকে AutoReboot এ ডাবল ক্লিক করে ভ্যালু  ০০০০০০০০ (সব গুলো শূন্য) দিয়ে পিসি Restart করতে হবে।

২। সিরিয়াল/ক্র্যাক ছাড়া উইন্ডোজ সেভেন জেনুইন করুন কিছু দিনের জন্য : Start Menu>>All programs>>Accessories  এ গিয়ে Command Prompt এর উপর রাইট ক্লিক করে “Run as administrator” এর উপর ক্লিক করতে হবে। এখন নিচের কমান্ড লিখে এন্টার প্রেস করতে হবে:  slmgr  -rearm  ;  এবার পিসি রিস্টার্ট নিবে- ৩০ দিনের জন্য active হয়ে যাবে। এভাবে আরও ৩ বার করা যাবে।

৩। কোনও সফটওয়্যার ছাড়াই ডক/ওয়েব পেজ pdf বানাবেন কিভাবে : টার্গেটকৃত ফাইল ওপেন করে কি-বোর্ড থেকে Ctlr+p চেপে ধরতে হবে। তারপর ইচ্ছামত ফাইলের destination change করে pdf বানানো যাবে।

৪। স্টার্ট আপের সময় কমিয়ে নিন : যা করতে হবে- Start option > Run > msconfig লিখে এন্টার > startup > এখানে অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্র্রামগুলো uncheck করে Ok দিয়ে PC restart করতে হবে।

৫। দ্রুত গতিতে উইন্ডোজ চালু করা : দ্রুত গতিতে উইন্ডোজ চালুর জন্য- Start option > Run > Sysedit  লিখে এন্টার । এখন  C:/Autoexec.bat এবং C:/Config.sys ফাইল দু’টো আছে কিনা তা দেখতে হবে। যদি থাকে তাহলে সেগুলো সম্পাদন করে নিচের লাইনে Stacks=0,0  যুক্ত করে  PC restart করতে হবে।

৬। হার্ডডিস্কের ড্রাইভ লুকিয়ে রাখা : নিরাপত্তার জন্য ইহার যেকোন ড্রাইভ লুকিয়ে রাখতে চাইলে-  Start option > Run > gpedit.mc  লিখে এন্টার > এখান থেকে  User Configuration/Administrative Templates/Windows Components এ গিয়ে  Windows Explorer তে ক্লিক করতে হবে। ডানপাশে  ” tilde these specified drives…” ডবল ক্লিক করে  Setting এ গিয়ে  Enabled সিলেক্ট এবং ড্রাইব নির্বাচন করে বেরিয়ে আসতে হবে।

৭। হার্ডডিস্কের নির্দিষ্ট ড্রাইভ লক করা : পিসিতে অন্য ইউজারদের লিমিটেড অ্যাকসেস করা যায় সহজেই, এমনকি বিভিন্ন ড্রাইভের অ্যাকসেসও বন্ধ করা যায়। এজন্য নিজের ইউজার একান্টটি একটি পাসওয়ার্ড দিয়ে প্রটেক্ট করে নিতে হবে। এবার অন্য ইউজারদের জন্য একটি নতুন একাউন্ট খুলতে হবে।  Create এ new account এ ক্লিক করে পছন্দমত নাম দিয়ে  next দিয়ে একাউন্ট টাইপ Limited সিলেক্ট করে Create Account দিয়ে নতুন একাউন্ট খুলতে হবে। এখন- My computer > Tools > Folder Option > View Tab > Advance Setting > Use Simple File Sharing (Recommended) > এর বাম পাশের টিক চিহ্ন তুলে দিয়ে > Ok. অত:পর- পিসির নির্দিষ্ট কোন ড্রাইভ অন্য কাউকে অ্যাকসেস করা থেকে বিরত রাখতে চাইলে সেই ড্রাইভের উপর মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করে > Properties > Security Tab > Add > এখন নতুন যে ইউজার একাউন্ট তৈরী করা হয়েছে তার নাম লিখে OK দিয়ে > সেই নামের  উপর ডাবল ক্লিক করে যে ডায়ালগ বক্সটি আসবে সেখানে Permission for a থেকে Full Control Deny তে মার্ক করে Apply > Ok. এবার Start menu থেকে Log off User Name এ ক্লিক করে নতুন একাউন্টে Log On করে দেখুন ঐ ড্রাইভে আর অ্যাকসেস করা যাচ্চে না। তাছাড়া লিমিটেড ইউজার অ্যাকাউন্ট হওয়ায় আরও অনেক অ্যাকসেস বন্ধ হয়ে যাবে।

৮। ওয়েবসাইট ব্লক করা : কম্পিউটারে একাধিক ইউজার থাকলে বা অফিসের কম্পিউটার হলে অনেক সময় বিভিন্ন ওয়েবসাইট বন্ধ রাখার প্রয়োজন হয়। তার মধ্যে একটা পদ্ধতি হল-  Any Weblock Software (only 439 kb). Download link: www.anyutils.com. এবার সফটওয়্যারটি চালু করে পাসওয়ার্ড দিয়ে  Add বাটনে ক্লিক করে ওয়েবসাইট যোগ করতে হবে। এভাবে চ্ছেমত ওয়েবসাইট যুক্ত করা যাবে। সবশেষে Apply Settings বাটনে ক্লিক করে পিসি রির্স্টার্ট করতে হবে। এবার দেখুন কোন ব্রাউজারেই ব্লক করা ওয়েবসাইট খুলছে না। এই সফটওয়্যারটি মূলত  system32\drivers\etc – এর  hosts ফাইলটিকে সম্পাদনা করে থাকে।

৯। পেনড্রাইভের সুরক্ষা : (ক) পেনড্রাইভ কখনোই সরাসরি Open অথবা Explore না করে My Computer এ গিয়ে Address Bar থেকে  Drive letter লিখে পেনড্রাইভ খুলবেন (যেমন- L হলে L:)। এতে পেনড্রাইভে ভাইরাস থাকলেও তা পিসিতে ছড়ানোর সম্ভাবনা কমে যায়। (খ) Tools/Folder Options > View > Show Hidden Files and Folders > Hide Extensions for known File Types > Hide Protected Operating System Files চেকবক্সে টিক চিহ্ন দিয়ে হিডেন সিসমেম ফাইল শো করিয়ে কোন সন্দেহজনক হিডেন এক্সিকিউটেবল (*.exe) ফাইল পেলে মুছে ফেলতে হবে। (গ) পেনড্রাইভ সাধারণত  autorun.inf  ভাইরাসে বেশী আক্রান্ত হয়। এ ভাইরাসটিকে এড়াতে আগে থেকে পেনড্রাইভে autorun.inf  নামে একটি ফোল্ডার (ফাইল নয়) তৈরী করে রাখলে ভাইরাসটি উক্ত ফাইলের জায়গায় এই নামে কোন ফাইল তৈরী করতে পারবে না। কারণ, অধিকাংশ ভাইরাস নির্মাতা এ বিষয়টি  এড়িয়ে যান।

১০। খারাপ সফটওয়্যার দূর করার সফটওয়্যার : অনেক সফটওয়্যার আছে যা খুবই ক্ষতিকর। এসব সফটওয়্যার পিসিকে ধীর গতির করে দেয়। ধীরে ধীরে পিসির সিস্টেমকে দখল করে নিয়ে এক সময় পুরোপুরি ধ্বংস করে দেয় হার্ডওয়্যার ও সব সফটওয়্যার। এর জন্য প্রয়োজন : ডাউনলোড লিংক : www.superantispyware.com . অথবা- www.download.com . স্ক্যান করে যা যা পাওয়া যাবে এর সবই ম্যালওয়্যার এবং এগুলো সাথে সাথে মুছে ফেলতে হবে।

১১। গ্যালারী ইউটিলিটিজ : সিস্টেম মেইনটেনেন্স এর জন্য মূলত এই সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়। ইহা দ্বারা পিসি ক্লিনিং, রিপিয়ারিং এবং গতি ফিরিয়ে আনার জন্য অত্যন্ত কার্যকরী একটি সফটওয়্যার। এর মাধ্যমে নিমিষেই পিসির যাবতীয় সমস্য সমাধান করা যায়। ডাউনলোড লিংক : www.glaryutilities.com/gu.html?tag=download .

১২। উইন্ডোজ ৭ এর লগ অন স্ক্রীন পরিবর্তন করুন আরো সহজে :

নিচের ছবির মত ক্লিক করে সফটওয়্যারটি ওপেন করুন :

নিচের ছবির মত ক্লিক করে ফোলডার সিলেক্ট করুন যেখানে আপনার পচ্ছন্দের ছবি আছে

তারপর ছবি সিলেক্ট করে APPLY এ ক্লিক করে কম্পিউটার Restart দিন ।

১৩। গোপনীয় ফাইল/ ফোল্ডার কে রাখতে পারেন সুরক্ষিত ,যা অত্যান্ত শক্তিশালী (মাত্র ৬৭০ KB) :

প্রথমে সফটওয়্যারটি কপি করেন নিন, তারপর এটাকে পেষ্ট করুন আপনি যে ফাইল / ফোল্ডার কে লক করতে চান

তারপর সফটওয়্যারটি ডবল ক্লিক করুন । তার নিচের মত স্কিন দেখতে পাবেন যাতে আপনার কাঙ্খিত পাসওয়াড প্রবেশ করান দুই বার । তার পর protect এ ক্লিক করুন,ব্যাস আপনার ফোল্ডার লক হয়ে যাবে ।
এবার লকটি খুলতে চাইলে সফটওয়্যারটি ডবল ক্লিক করুন এবার পাসওয়াড চাইবে এবং নিচে তিনটি ওপসন দেখাবে :
এখানে : Temporary = সাময়িক ভাবে খুলবে Restore Protection  দিলে আবার লক হয়ে যাবে ।
Complete = আপনার লকটি একেবারে খুলে যাবে ।
সফটওয়্যারটি ডাইনলোড করার জন্য এখানে ক্লিক করুন ।